পূর্ণিমা হক, একজন জনপ্রিয় কবি হিসেবে কবিতা প্রেমিদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ: কষ্ট নৈঃশব্দ্য, নীলান্তে নীল, কালের বেদিতে লাল কৃষ্ণচূড়া। তিনি পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ভাটপাড়া গ্রামের পুত্রবধু।

  • জীবন-বোধ
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    জীবন বোধ, চিলেকোঠা

    জীবন বোধ পূর্ণিমা হক গভীর নিশীথে তন্দ্ৰাহত নয়নে নেই ঘুম– জানালার ফাঁকে দেখি নিঃশব্দ আকাশ জোছনার কোলে শীতের শিশির কাঁঠালের ডালে পাখির ডাকাডাকি শিউলির ঘ্রাণে জীবনের ঘ্রাণ, আমিও চেয়ে থাকি অপলক চোখে বাইরের আকাশে। তন্দ্ৰাহত নয়নে নেই ঘুম নির্জন মাঠে, আমার মনের জীর্ণ কুটিরে জোছনার আলোরা খেলে শান্ত বাতাসে। মনের আকাশে শিশির ঝরিয়ে রোদেরা হাসে সকালের মেঠোফুলে। তোমায় পেয়েছিলাম একদিন সবুজ ক্ষেতের মাঝে, রূপালি বিকেলে গোধূলি বিভায়, কৃষ্ণচূড়ার তলে। আমার প্রতীক্ষায় হয়তো আজো দাঁড়িয়ে তুমি এই অবেলায়– বিশ্বাসের বোধোদয়ে। তবে কি আজো আমাদের অব্যক্ত ভালোবাসা পথ চলে ছায়াঘন তরুর পথে হাতে হাত রেখে? এখনো ক শুনি হৃদয়ে কান পেতে জোছনার…

  • আত্মতৃপ্তি
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    আত্মতৃপ্তি, ভালোবাসা ভুল নয়, সাময়িক হতাশা শেষে

    আত্মতৃপ্তি পূর্ণিমা হক   ধরেছি হাত তোমার দিনের দ্যুতি, রাতের তারায় ভালো থাকার আশায়। পার হয়ে এসেছি কতো পথ অন্ধকার বিষাদের কষ্টের- নির্ভরতার আশে। কতো যে কেটেছে রাত নির্ঘুম নয়নের বিদগ্ধতায় যোজন যোজন পথের সীমানা পেরিয়ে শ্রান্ত দেহ-মনে ধরেছি হাত তোমার। শুদ্ধ শিকলে অটুট আপনে বেঁধেছো আমায় জলসা ঘরে তোমার আলিঙ্গনে। তোমার প্রেরণায় চলেছি আজও ভ্রান্তিবিদ্ধ এ আবাসে আপন করে, ভালো রেখেছো বলে – আত্মতৃপ্ত হয়েছে বিবেক পাওয়ার পরিসীমায় আপন আত্মার ভুবনে। আরও পড়ুন কবি পূর্ণিমা হকের কবিতা- হৃদয়পটে সন্ধ্যা অনুভবে   ভালোবাসা ভুল নয় তোমায় পেয়েছিলাম বর্ষার এক ভোরে দেখেছিলাম বর্ষার বারিধারায় অস্পষ্ট করে শরতের মেঘে ঢাকা চাঁদ যেমন,…

  • অন্তরালে
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    অন্তরালে, ছোটোবেলার মতো, পুনশ্চ প্রশ্ন করেছি

    অন্তরালে পূর্ণিমা হক   কোথায় দেখেছি তারে আবছা আঁধারে মনে না পড়ে চেতনে মননে, সেই অবয়ব জেগে ওঠে মানসপটে অতীতের অলৌকিকতায়। কোথায় দেখেছি তারে নয়নের নদীতট নিসর্গের নিরন্তর স্রোতে খুঁজে ফিরি হৃদয়-ক্যানভাসে। সেই মুখ, চকিত নয়ন কল্পনা কিংবা বাস্তবতায় অর্ধবৃত্তাকারে মন-মোহনার সৈকতে আছড়ে পড়ে বারে বারে। কোথায় দেখেছি তারে সুনশান গাঁয়ের মাঠে, বটবৃক্ষের ছায়ায়, প্রকৃতির নির্জনতায় চেনাজানা অনুভূতির অন্তরালে মনে না পড়ে। কোথায় দেখেছি তারে নেইকো স্মরণে, ভুলেই তো যাই সে সব কথা যখন ছিলো সত্তাজুড়ে চেনা-জানা অনুভূতির অন্তরালে। আরও পড়ুন পূর্ণিমা হকের কবিতা- ভালোবাসি তোমায় হৃদয়পটে সন্ধ্যা   ছো্বেটোলার মতো  সেই যে ছোটোবেলায় বাড়ির পাশের কাদাজলে মাছ ধরতে গিয়েছিলাম,…

  • ভালোবাসি-তোমায়
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    ভালোবাসি তোমায়, অনুভবে, একলা দাঁড়িয়ে আমি

    ভালোবাসি তোমায় পূর্ণিমা হক   এখনো ভালোবাসি তোমায় ঠিক আগের মতো, কতো যে বেসেছি ভালো অব্যক্ত ভালোলাগায় বুনেছি কামিনীর মালা দেহাত্মপ্রত্যয়ে। এখনো হৃদয়ে শুনি তোমার ভালোবাসার স্পন্দন, এখনো বৃষ্টিভেজা জোছনা রাতে শিহরণে সিক্ত হয় এ মন। বনবীথির শীতল ছায়ায় হাতে রাখা হাত সান্ধ্যক্ষণে হৃদয়ের না বলা কথা ঝরেছিলো পুলকের অশ্রুধারায়। এখনো ভালোবাসি তোমায় গন্ধে বিভোর হাসনাহেনার মতো নির্জনতার একান্ত ক্ষণে মন হারানোর মতো। এখনো ভালোবাসি তোমায় অবিরত, অবিচল- ঠিক আগের মতো। আরও পড়ুন পূর্ণিমা হকের কবিতা- অষ্টাদশী মন অথচ মানুষ সম্পর্ক   অনুভবে শ্রাবণের বৃষ্টিধারায় ভিজবো বলে শাল মহুয়ার বনে হেঁটেছি কতো, কচি কচি পাতার ফাঁকে থোকা থোকা ফুলের গুচ্ছে…

  • সন্ধ্যা
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    সন্ধ্যা, পথের বাঁকে, দূরত্বের ছায়াপথে

    সন্ধ্যা পূর্ণিমা হক   আমার ঘরের পাশে সজনে গাছে যখন সন্ধ্যা নামে শীতের শিশিরে, বিহঙ্গরা নীড় খোঁজে। সন্ধ্যা শেষে রাত আসে বিস্মৃতির ব্যথা জমে মনে হৃদয়ের অতল জমিনে। কতদিন দেখি না তোমায় সতৃষ্ণ নয়নে! বিদায়ের বুকে নিয়েছ ঠাঁই মাটির মমতা ছেড়ে- অনন্তলোকে। সান্ত্বনার মেঘেরা আনে আঁধারে আষাঢ় আমার হৃদয়ে- অস্বস্থির দাবানলে পুড়ে অঙ্গারিত হৃদয়। কোথায় হারিয়ে গেল আকাশি মন সাদা-কালো হতাশার হিমে নীল নীল কষ্টের বিষে! আমার ঘরের পাশে সজনে গাছে রাত শেষে ভোর হয় পাখির কুজনে। সাদা সাদা ফুলেরা হাসে স্নিগ্ধ বাতাসে প্রশান্তির হাওয়া লাগে আকাশি মনে, অতঃপর দিবসের শেষে যখন সন্ধ্যা নামে অতল জমিন যায় ভরে হতাশার হিমে।…

  • হৃদয়পটে
    কবিতা,  পূর্ণিমা হক,  সাহিত্য

    হৃদয়পটে, আসবো ফিরে, দহন দাবানল

    হৃদয়পটে পূর্ণিমা হক   এখানে আকাশ নীল জমিনের বিস্তৃত সুবিশাল পরিসরে নির্জনতায়, নিঃশব্দে সাড়ে তিন হাত মাটির হৃদয়ে ঠিকানা হয়েছে তোমার। তোমার রেখে যাওয়া আনন্দ বেদনাগুলো করে বাস অবিচ্ছেদ্য আত্মীয়ের মতো- আমার হৃদয় পিঞ্জরে। ঋতু যায় ঋতু আসে জীবন শুধু যেতে পারে না ফেরার দেশে। তুমি তো নিসর্গের মতো- আপন আত্মার বিচ্ছেদে হয়েছো বিলীন, হাত রেখেছি আমি তোমার নিথর দেহে, শীতল কপালে- শেষ স্পর্শের অনুভূতিটুকু নিয়ে আমিও হয়েছি বিলীন। তবুও ব্যথার নীল বেয়ে জ্বলে ওঠে অন্য এক সুখ। পূর্ণিমার চাঁদ, স্নিগ্ধ হাওয়া, পাখির কলতান আকাশের নীলে তোমার বসতি যেনো নতুন দিনের মতো পুবাকাশে নতুন জীবন। তোমার প্রেরণাগুলো ঘাসফুল হয়ে রয়…

error: Content is protected !!