• উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয়,  পড়াশোনা,  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

    একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া ২০২১

    একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া ২০২১ সরকারি-বেসরকারি কলেজে  একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রকাশিত নীতিমালা অনুসারে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া আজ ৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ১৫ জানুয়ারি (যারা ফলাফল পুনঃনিরীক্ষণের জন্য আবেদন করেছে তাদেরও এই সময়ের মধ্যে আবেদন করতে হবে) পর্যন্ত চলবে। আবেদন প্রক্রিয়া শেষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য ১ম পর্যায়ে নির্বাচিতদের তালিকা বা ফলাফল ২৯ জানুয়ারী রাত ৮ টায় প্রকাশ করা হবে। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ক্লাশ শুরু হবে ২ মার্চ থেকে। বিগত কয়েক বছরের মতো এবারও এসএসসির ফলাফলের ভিত্তিতে কলেজে ভর্তি করা হবে। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে শুধুমাত্র অনলাইনে আবেদন করা…

  • আদ্যনাথ-ঘোষ
    ভায়না,  লেখক পরিচিতি,  সাহিত্য,  হেমরাজপুর

    আদ্যনাথ ঘোষ

    কবি ও প্রাবন্ধিক আদ্যনাথ ঘোষ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, সাপ্তাহিক ও স্থানীয় পত্রিকায় কবিতা ও প্রবন্ধ লিখেন। কবিতা আশ্রম (ভারত) এবং কালি ও কলম সাহিত্য পত্রিকাসহ দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন লিটল ম্যাগ ও সাহিত্য পত্রিকায় নিয়মিত লিখে থাকেন। জন্ম: আদ্যনাথ ঘোষ পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার ভায়না ইউনিয়নের  অন্তর্গত  পদ্মার তীরবর্তী নিসর্গ সৌন্দর্যশোভিত গ্রাম হেমরাজপুরে ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দের ০২ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। পারিবারিক জীবন:  পিতা বীরমুক্তিযোদ্ধা সন্তোষ কুমার ঘোষ এবং মাতা নিভা রানী ঘোষ। ১০ ভাই-বোনের মধ্যে তিনি তৃতীয়। বড় ভাই বৈদ্যনাথ ঘোষ, সত্যনাথ ঘোষ, স্বপন কুমার ঘোষ, তাপস কুমার ঘোষ এবং বড় বোন মেনোকা রানী ঘোষ, প্রতিমা রানী ঘোষ, প্রতিভা রানী ঘোষ,…

  • এসএসসি-পরীক্ষার-ফলাফল-২০২১
    মাধ্যমিক বিদ্যালয়,  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

    এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল-২০২১

    সুজানগর উপজেলার সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল-২০২১   ১। সাতবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য: পাস=৩৬; ফেল=৬ মানবিক: পাস=৯৬; ফেল=৫; জিপিএ-৫=১ বিজ্ঞান: পাস=৫১; ফেল=২; জিপিএ-৫= ১৯   ২। সাতবাড়িয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য: পাস=১২; জিপিএ-৫=৬ মানবিক: পাস=৬৬; ফেল=৪; জিপিএ-৫=৫ বিজ্ঞান: পাস=২২; ফেল=১; জিপিএ-৫=১৬   ৩। বোনকোলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য: পাস=১৬; ফেল=১ মানবিক: পাস=৬৮; ফেল=৩ বিজ্ঞান: পাস=৭; ফেল=১; জিপিএ-৫=৩   ৪। মানিকহাট উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য: পাস=১২; ফেল=২; মানবিক: পাস=৮০; ফেল=২; জিপিএ-৫=১ বিজ্ঞান: পাস=৩৫; ফেল=৩; জিপিএ-৫=১৬   ৫। মথুরাপুর উচ্চ বিদ্যালয় বাণিজ্য: পাস=২৭; ফেল=১; জিপিএ-৫=২ মানবিক: পাস=২১ বিজ্ঞান: পাস=১৮; জিপিএ-৫=১১   আরও পড়ুন সুজানগর উপজেলার সকল কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল-২০২১   ৬। গোপালপুর…

  • সুজানগরের-নামকরণের-ইতিহাস
    উপজেলার ইতিহাস,  সুজানগর উপজেলা

    সুজানগরের নামকরণের ইতিহাস

    সুজানগরের নামকরণের ইতিহাস   পাবনা জেলার সুজানগরের পূর্বনাম ছিল গোবিন্দগঞ্জ। মোগল সম্রাট শাহজাহানের রাজত্বকালের শেষভাগে তার পুত্রদের মধ্যে রাজ সিংহাসনের দখল নিয়ে যে বিরোধের সূত্রপাত হয় তার ধারাবাহিকতায় যুবরাজ শাহ সুজা আরাকানে পালিয়ে যান। তিনি আরাকানে গমনকালে সুজানগরে ৩ রাত অবস্থান করেন। যুবরাজ শাহ সুজার এই অবস্থানকে চিরস্মরণীয় করে রাখার জন্য এতদঞ্চলের মানুষ এ জনপদের নামকরণ করেন সুজানগর। রাধারমণ শাহা তার ‘পাবনা জেলার ইতিহাস’ গ্রন্থে লিখেছেন, “মোগল আমলে শাহ সুজা একদা ঢাকা গমন সময়ে পদ্মাতীরে এখানে কিয়ৎদিনের জন্য অবস্থান করেন, তখন হইতে এই স্থানের নাম সুজানগরে পরিণত হইয়াছে।” মোঘল সম্রাট জাহাঙ্গীরের ইচ্ছায় তার ছোটবেলার বন্ধু, ঘনিষ্ঠ সহচর ও প্রধান সেনাপতি…

  • সুজানগর-পৌরসভার-ইতিহাস
    পৌরসভা,  পৌরসভার ইতিহাস ও ঐতিহ্য,  সুজানগর উপজেলা

    সুজানগর পৌরসভার ইতিহাস

    সুজানগর পৌরসভার ইতিহাস   পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নকে ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দের ৫ অক্টোবর  পৌরসভা ঘোষণা করা হয়। কিন্ত এর প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হয় ২০০৩ খ্রিস্টাব্দের ১২ জুন। সুজানগর পৌরসভাটি ২০০৬ খ্রিস্টাব্দের ২ জানুয়ারিতে ‘গ’ শ্রেণি হতে ‘খ’ শ্রেণিতে উন্নীত হয় এবং ২০১৪ খ্রিস্টাব্দের ২৩ জুনে  স্থানীয় সরকার বিভাগ উক্ত পৌরসভাকে ‘ক’ শ্রেণি পৌরসভাতে উন্নীত করে।  সুজানগর পৌরসভার আয়তন ১১.০৮ বর্গকিলোমিটার। ৯টি ওয়ার্ডের ১৩ মহল্লাতে মোট জনসংখ্যা ২৭ হাজার ২৪০ জন। প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ২২৯৮ লোক বসবাস করে (২০১১ সালের আদমশুমারী রিপোর্ট অনুযায়ী)। পৌরসভায় ২টি কলেজ, ২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩টি মাদ্রাসা, ৫টি সরকারি ও ৩টি বে-সরকারি মোট ৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়,…

  • সুজানগর-উপজেলার-ইতিহাস
    উপজেলার ইতিহাস,  সুজানগর উপজেলা

    সুজানগর উপজেলার ইতিহাস

    সুজানগর উপজেলার ইতিহাস   মোগল সম্রাট শাহজাহানের দ্বিতীয় পুত্র ছিলেন বাংলার সুবেদার শাহ সুজা। শাহ সুজার স্মৃতি বিজড়িত সুজানগর পাবনা জেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম উপজেলা। এটি পদ্মা নদীর তীরবর্তী পাবনা শহর থেকে ২০ কি.মি. পূর্বে অবস্থিত। পাবনা জেলার অন্যতম বৃহত্তম উপজেলা হলো সুজানগর। অতি প্রাচীনকালে তথা বৌদ্ধযুগে সুজানগর অঞ্চল পৌণ্ড্রবর্ধন বিভাগের অধীনে ছিল। সে সময় অধিকাংশ অঞ্চল ছিল জলমগ্ন। পাল ও সেন আমলে এই অঞ্চল বরেন্দ্র ভূমির আওতাভুক্ত ছিল। পাল শাসনামলে করমজা ও বরাট গ্রামের নাম, যশ ও গৌরব প্রচারিত ছিল। মোগল শাসনামলে এই অঞ্চল সুবা বাংলা সরকার, পরগণার আওতাভুক্ত ছিল। ১৮২৮ খ্রিস্টাব্দের ১৬ অক্টোবর রাজশাহী জেলা থেকে পাবনা, শাহজাদপুর, রায়গঞ্জ,…

error: Content is protected !!