কবিতা,  ফজলুল হক,  সাহিত্য

অমরত্ব

অমরত্ব

ফজলুল হক

 

আমি বিচলিত
যেমনটা হয় আঁধারে হারালে জোছনা কথা;
শ্রাবণ কি তোমায় দেয়নি আভাস?
গভীর নিমগ্নতায় সন্ধ্যাকে রাতের গভীরে নিমন্ত্রণ করেছি-
পৌরাণিক অরণ্যের পাণ্ডব গুহায় মুখোমুখি হতে চাই দুজনে।

যতো ঘৃণা আছে উগরে দিও তাচ্ছিল্যের ইঙ্গিতে
সজোরে খুলে দিও অভিযোগোর সবকটি খিড়কি,
ভুলেও জানতে চেয়ো না নিছক অভিমানের কথা
আমি শোনাবো রোদনের গল্প।

পূতপবিত্র অর্ঘ্যজলের ঘটি নেই
কোনো মালি হাতে তুলে দেয়নি কোনোদিন দুটো সতেজ বা বাসি ফুল
নামমাত্র মূল্যে কিনে আনবো
সে সাহস হয়নি কখনো,
আমি হতদরিদ্র প্রেমিক
আছে প্রার্থনার একজোড়া বিনয়ী হাত,চোখে জল টলমল।
বিত্তবৈভব তুচ্ছ সবই
তুচ্ছ নেশার শরাব-
পাশে পাবার নিবিড় ভরসায়
স্রষ্টার কাছে অমরত্বের নৈবেদ্য নিবেদন করেছি।
শ্রাবণের মাঝরাতের বৃষ্টিধারায় ভিজুক ভুলের শরীর,
সরে যাক বিভেদের তারকাঁটা।

 

ঘুরে আসুন আমাদের ফেসবুক পেইজে

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি বিকাশ এবং সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন ‘আমাদের সুজানগর’-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সাধারণ সম্পাদক। তিনি ‘আমাদের সুজানগর’ ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। এছাড়া ‘অন্তরের কথা’ লাইভ অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধায়ক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন। বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ই জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালি ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!