বাংলাদেশ
কবিতা,  খোন্দকার আমিনুজ্জামান,  সাহিত্য

বাংলাদেশ, ভালোবাসার পর্ব, দেশের মাটি, স্বাধীনতা, সাবাশ বাংলাদেশ

বাংলাদেশ

খোন্দকার আমিনুজ্জামান 

 

রূপ-অপরূপ সবুজ শ্যামল সোনার বাংলাদেশ
কতো ভালোবাসি তবু ভালোবাসার হয় না কভু শেষ।

হাওর-বাওর পাহাড়-টিলা কী সুন্দর সমতল
নদী-নালা খাল-বিল জলে করে ছল ছল
এমন দেশ বাংলাদেশ ভালো লাগার নেইকো শেষ।

বারো মাস ফুল-ফল ফসলের জয়গান
দোয়েল-কোয়েল ঘুঘু-শ্যামা কোকিলের কুহুতান
এমন দেশ বাংলাদেশ এই মাটিতেই জীবনটা হোক শেষ।

হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খৃষ্টান
একসাথে গড়বো দেশের মান
এই চেতনা অমর হোক এটাই সর্বশেষ।

আরও পড়ুন খোন্দকার আমিনুজ্জামানের কবিতা-
কষ্ট
বিবেক
সাদা মন

 

ভালোবাসা পর্ব

ভালোবাসা ছিলো বলে ত্যাগের মহিমা এলো
অঢেল রক্ত ঢেলে সোনার বাংলাদেশ হলো।

বাংলাদেশ তুমি লাখো শহীদের পবিত্র আঙিনা
বাংলাদেশ তুমি রক্তস্রোতে গড়া সাম্য চেতনা
কতো রক্ত রঙে স্বপ্নের স্বদেশ নির্মাণ হলো।

শুধু নির্মাণ চায়নি মুক্তিযুদ্ধ সুনির্মাণ চেয়েছিলো
সেই দ্যোতনায় মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখেছিলো
তাদের সেই স্বপ্নপথের যাত্রী হই চলো।

ঘুমিয়ে থেকো না ছুটে এসো বর্তমান প্রজন্ম
পবিত্র দায়িত্ব পালনে সার্থক করো জন্ম।

যে করেই হোক শুধিতে হবে লাখো শহীদের রক্ত ঋণ
যে করেই হোক কপোটতা উত্তীর্ণ করে
ফিরিয়ে আনবো সোনালি দিন সাম্য ও গণতন্ত্রের স্বপ্ন সরসা পথে
এসো সবে দেশকে এগিয়ে নিয়ে চলো।

 

দেশের মাটি

আমার দেশের মাটিরে ভাই সবার চেয়ে খাঁটি
চলো না খালি পায়ে একটুখানি দপ দপাইয়া হাঁটি।

মনে হয় শরীরে রসের জোগান নিলাম
মাটির সোঁদা গন্ধে মনটা ভরিয়ে দিলাম
আহা প্রাণের চেয়ে প্রিয় আমার দেশের মাটি।

এই মাটিতে বারো মাস ফুল-ফল-ফসল ফলে
তাই দিয়ে চোখ জুড়ায় মন ভরে, পেট চলে।

এই মাটির তরে যুদ্ধ করে রক্ত দিলো কতো বীর জনতা
এখানে আনবো মোরা তাদের স্বপ্নের সাম্য একতা
তবেই মোরা হবো এই মাটির মতোই খাঁটি।

 

স্বাধীনতা

নীল আকাশের নিচে বাংলা মায়ের বুকে
রক্ত দিয়ে আনলো যাঁরা প্রিয় স্বাধ
তাদের কথা রাখবো বুকে, থাকবে মুখে মুখে।

মুক্তিযুদ্ধ করলো যাঁরা তাঁরা মোদের নয়ন তারা
ঐ পতাকায় আছে তাঁরা শহীদ যাঁরা, গাজী যাঁরা
ধন্য তাঁরা জীবন বাজি রেখে যাঁরা শত্রুসেনা দিলো রুখে।

আজ স্বাধীন দেশের মানুষ মোরা
এই স্বপ্ন পূরণ করলো যাঁরা
তাদের স্বপ্নপথে চললে মোরা থাকবো মহা সুখে ।

 

শাবাস বাংলাদেশ

হিমশীতল দেশ ছেড়ে পরিযায়ী পাখি আসে সোনার বাংলাদেশে
নানা বিপদ পাড়ি দিয়ে আবার ফিরে যায় নিজের দেশে
এরই নাম মাতৃভূমি এরই নাম স্বদেশ।

আমি ধন্য তোমার জন্য মা
আমার বাংলা মা সাইবেরিয়ার পাখিকেও না করে না
তাই তো তুমি স্বর্গভূমি মা আমার বাংলাদেশ।

দেশ ছাড়তে বাধ্য হলো রোহিঙ্গা নরনারী
দলমত এগিয়ে গেল কেউ দিলো না আড়ি
বিশ্ব বিবেক দিলো স্যালুট শাবাস বাংলাদেশ।

মিয়ানমারের লাখো রোহিঙ্গা
স্বদেশে রাখবে তারা অধিকারের পা
সেই অধিকার দিতে জাগরণ
আসুক বিশ্বে সকলেই পেয়ে যাক শান্তির স্বদেশ।

আরও পড়ুন কবিতা-
অগ্নিশ্বর
তোমার প্রতীক্ষায়
প্রকৃতিতে হবো লীন
প্রেমের পদ্য

 

ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলফেসবুক পেইজে

বাংলাদেশ

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী মো. আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সমাজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন "আমাদের সুজানগর"-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং "আমাদের সুজানগর" ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন।বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ সালের ১৫ জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!