ফাগুন-শ্রাবণ
কবিতা,  ফজলুল হক,  সাহিত্য

ফাগুন শ্রাবণ, রোদনের নীলজল, ভালবাসা সন্তর্পণে

ফাগুন শ্রাবণ

ফজলুল হক

 

কী সোনা ফলা কপাল তোমার!
যেখানেই হাত ছোঁয়াও,
গোলাভরে স্বপ্ন-ফসলে।
যেদিকে দৃষ্টি মেলো,
নিমিষেই হয়ে যাও প্রশান্ত নদী
রসিক মাঝি ভিড়ায় নাও অনুরাগে;
যে পথেই হেঁটে যাও বেঢপ শব্দে
হয়ে যাও সবুজ অরণ্য,
বাহারী পাখিদের কলকাকলিতে
আচানক মুখরিত হও প্রাণের উচ্ছ্বাসে।
তোমার আঙিনায় বসন্তের সোঁদা
গন্ধ ছড়ানো পরাগ খোঁজে রঙিন প্রজাপতি;
আমার ফাগুন চোখে শ্রাবণধারা
ফুল ঝরা দিন।
ভেবে ভেবে এই অতুল তোমাকে,
দিনের ক্লান্তিশেষে
আযানের অমোঘ সুরে ভেসে আসে প্রার্থনা-সন্ধ্যা
আর ফেলে আসা প্রজাপতি দিন!
বালুচর কপাল আমার
বপন করি স্বপ্নের বীজ
ফলে দূর্বাঘাস।
অদিতি,তোমাকে আর হিংসে হয় না
আমি এক অভ্যস্ত চাষী।

আরও পড়ুন ফজলুল হকের কবিতা-
প্রশ্ন দাঁড়িয়ে আছি ভুল দরজায়
ভোর হয়, আবার অন্ধকার নামে
রোদনের নীলজল

ইদানীং একটু দেরিতেই ঘুম ভাঙে
নেই তেমন ব্যস্ততা।
আষাঢ়ে আলস্যের খোলস ভেঙে দৃষ্টি জানালা ভেদ করতেই দেখি
ভবনের নির্ভার ছায়ায় ক্লান্তঘুমে রাতজাগা বিশস্ত প্রহরী কুকুর,
নাগরিক কোলাহল,গাড়ির চঞ্চলতায় ব্যস্ত অলিগলি;
ফেরিওয়ালার হরদম হাঁকডাক মাছ-মুরগী-সবজি,
তবুও যেনো প্রগাঢ় শূন্যতা অামার আঙিনায়।
কী যেনো ভাবতেই
সুখজাগানিয়া সফেদ স্মৃতির উঠোনে অকস্মাৎ উড়ে এলো একজোড়া শাদা পায়রা,
এ যেনো পেলব ভালোবাসা,হিরন্ময় সুখ।
আমার সজল অক্ষিপটে
সুশোভিত তোমার ছাদবাগান,
অথচ একটি ফুলও ফোটে না আমার জন্যে;
বিকেলের ম্রিয়মান রোদে কতোদিন দেখি না গোলাপ চোখের পাপড়িতে নীল প্রজাপতির ছোঁয়া।
হৃদয়ের অতল গহীনে দানা বেঁধেছে মান-অভিমান,
তবুও কী এক শাশ্বত অভিলাষে আমি-তুমি এতোটা সময়!

 

ভালোবাসা সন্তর্পণে

পরেরবার যখন দেখা হবে
কতোটুকু বদলে যাবো –সে কথাই অনুধ্যান করছি।
সফেদ শরীরে লাল পেড়ে কালো জামদানি জড়িয়ে সেদিনও কি ছুটে আসবে হন্তদন্ত দুপুরের মতো?
গোলাপ চোখের মহুয়া মায়া বনে বিস্ময়ে আমিও যে হারিয়ে যাবো মুখরিত অনুরাগে।
বাউণ্ডুলে হৃদয়ের উষ্ণ অস্থিরতায় তুমিও হয়ত বলবে
পুবের জানালায় স্থির দৃষ্টি মেলে
এখনো দীর্ঘশ্বাস ফ্যালো।
সংসারী হাত দুটো প্রশস্ত বাড়িয়ে সেদিনও কি দুঃসাহস দেখাবে
এখনও আমার জন্যে মেহেদির রঙে হাত রাঙাও,
না-কি ততোদিনে পুরাতন সব অভ্যেসগুলো একটু একটু করে বদলে ফেলবে?
অনেকদিন পরে যখন দেখা হবে
ধূসর চুলের উঁকি-ঝুঁকি আমাদের অনেকটা পিছন থেকে ভাবিয়ে তুলবে,
বিষণ্ণ চোখ দুটো সুগভীর অনুরাগে তোমাকেই খুঁজবে।
প্রতিশ্রুতি আমাকে ভীষণ ব্যস্ত রাখে
আমরা তো বদলে যাবো না
ধূসর চুলের মতো নিঃশব্দে!
আমরা কথা দিয়েছিলাম।

আরও পড়ুন কবিতা-
স্বপ্নবাড়ি
শ্রাবণ ধারা
অগ্নিশ্বর

 

ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলফেসবুক পেইজে

ফাগুন শ্রাবণ

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী মো. আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সমাজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন "আমাদের সুজানগর"-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং "আমাদের সুজানগর" ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন।বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ সালের ১৫ জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!