আত্রাই-নদী
কবিতা,  তাহমিনা খাতুন,  সাহিত্য

আত্রাই নদী

আত্রাই নদী

তাহমিনা খাতুন

 

আত্রাই! ছোট্ট এক নদী
ছোট্ট! তবু সে ছুটিতেছে বুঝি নিরবধি।
ছোট্ট তার দুটি কূল
এপার ওপার যায় দেখা তার
না হয় কোন ভুল।
কূল ঘেঁষে আছে তার ছোট ছোট গ্রাম।
স্নেহে আর মমতায় ঘিরে
রাখে অবিরাম।

হয়তো বা ছিল কভু
বিশাল জলধি
কঠিন সময়ের সাথে হইয়াছে
শীর্ণকায়া নদী।
বড় বড় পানশি আর পাল তোলা নাও
ছুটে যেত বহু দূরে
কোন দূর গাঁও।

গুন টেনে যেত নাও
কোন সে দূরের পানে
ভাটিয়ালি সুরের যাদু
ভেসে আসত কানে।

বিশাল জলধির চিহ্ন আজ
নাহি খুঁজে পাই,
ধুঁকিয়া বাঁচার আকুলতা তার
দেখি যে সদাই।

নিষ্প্রাণ স্রোত ধারা নিয়ে
তবু আজও তুমি,
বয়ে যাও নিজ মনে
ছুঁয়ে দু’পাড়ের ভূমি।

আজও তোমার স্বচ্ছ তোয়া নীরে
শাপলা শালুক মুখ তুলে চায়
সবুজ পাতার ভীড়ে।

তীরে বসে রোদ পোহায়
সাদা রাজহাঁস,
কখনও বা নামে কাটিতে সাঁতার
সাথী বালিহাঁস।

কেহ বা করিছে স্নান
ডুব দিয়ে জলে
জল নিয়ে খেলে কেহ
বড় কুতুহল।

ছোট ডিঙি নৌকায় কেহ
নদী দেয় পাড়ি
ওপারেই আছে যার
প্রিয় ঘর বাড়ি।

কেহ বা করিছে স্নান
ডুব দিয়ে জলে
কেহ বা করিছে খেলা
জলের অতলে।

কেহ বা নদীর জলে
কাটিছে সাঁতার
সাঁতরিয়া করিতেছে
এপার ওপার।

কেহ বা রয়েছে বসে
ছিপ ফেলে জলে
মাছেরা চালাক অতি
টোপ নাহি গেলে।

কেহ বা ধোয়ায় গাভী
সারা দিন পরে
কোথাও গাঁয়ের বধু
কাঁখে জল ভরে।

ছোট্ট নদীটি আজও
অকৃপণ আদরে
রাখিছে ঢাকিয়া আজও
স্নেহের চাদরে।

কোথা হতে আসিয়াছে
নদী আত্রাই
কোথায় মিলাবে ফের
বুঝি জানা নাই।

তোমা তরে থাক মোর
অসীম আশীষ
বহিয়া চল তুমি
শুধু অহর্নিশ।

আরও পড়ুন কবিতা-
গন্ধরাজ
তিতাস নদীর পাড়ে
অন্ধকারের জ্যোতি

 

 

ঘুরে আসুন আমাদের সুজানগর এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলফেসবুক পেইজে

আত্রাই নদী

Facebook Comments Box

তাহমিনা খাতুন ছড়া, কবিতা, ভ্রমণ কাহিনী, নারীর অধিকার নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে নিয়মিত কলাম লিখছেন। পেশায় একজন আইনজীবী। তিনি ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দের ১লা মার্চ পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত আহম্মদপুর ইউনিয়নের দ্বারিয়াপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!