তোমার-প্রতিক্ষায়
কবিতা,  মযলুম মুসাফির,  সাহিত্য

তোমার প্রতিক্ষায়, তুমি যদি আমায় ভালোবাসো

তোমার প্রতিক্ষায়

মযলুম মুসাফির (ছদ্মনাম) 

 

প্রহর কাটে না তাই চেয়ে থাকি
ঐ দূরপথ পানে,
কত ভালোবাসা লালন করেছি
মনের মধ্যিখানে।

 

কত ফুল আমি খোঁপায় পড়েছি
কত যে হাসনাহেনা,
তোমার বার্তা দিয়েছে আমায়
নীল দরিয়ার ফেনা।

 

তোমায় বরণ করবো আমি
সুমধুর গানে গানে,
কিছু রঙ আমি ধার চেয়েছিনু
আকাশের কানে কানে।

 

কতকিছু চাই লাজে মরে যাই
আমি যে অবলা বালা,
গেঁথেছি বসিয়া যতন করিয়া
বকুল ফুলের মালা।

 

নীরবের মাঝে সরব হৃদয়,
হবে যে মাল্যদান,
আকাশ আলোকে অপলক চোখে
পাখিরা গাহিবে গান।

 

তোমার তরেতে নির্ঘুম কাটে
কত মিশকালো রাত,
হৃদয়ে তুলেছে ফেনিল তুফান
প্রবাল ঝঞ্ঝাবাত।

 

তুমি যদি হও সোনার হরিণ
আমি তীর্থের কাক,
মেঘের শীতল জল হলে তুমি
আমি সে মেঘের ডাক।

 

নয়নের জল ঝরে অবিরল
বিষাদ সাগরে একা,
সপ্ত আকাশ করেছে প্রকাশ
তোমার পাব যে দেখা।

 

গ্রীষ্মের সাথে করি আলাপন
কঠোর জুলুম লাগি,
পৌষের কাছে হিমশীতলের
প্রতিরোধে কৃপা মাগি।

 

আদুল পায়েতে পাগলিনী বেশে
গেছি ঋতুরাজ দ্বারে,
আমার প্রিয়ার সাথে তুমি এসো
কহিয়াছি বারে বারে।

 

সাথে নিও ফুল করোনাকো ভুল
তুমিতো ফুলের রানী,
দিবে মোর প্রিয়, তুমি লিখে নিও
অমর অমোঘ বাণী।

 

পথে পথে আমি রেখে দিবো ফুল
ঝরা বকুলের ডালা,
তুমি এলে পাব কবিতা ও গানে
সুমধুর কথামালা।

 

অন্তর ভরা ভরা যৌবন
দীনতার তোলপাড়,
মিলনের সুখে সার্থক হয়ে,
হয়ে যাব একাকার।

 

তুমি যদি আমায় ভালোবাসো

আমায় যদি একটু ভালোবাসো
পাগলকরা দৃষ্টি দিয়ে হাসো
বাদাই যাবো হাট করতে ফের,
বিলগাজনা একাই দিব পাড়ি
দুই পায়েতে শতেক বাধা মাড়ি
আনবো কিনে তিলের খাজা ঢের।

 

আমায় যদি ধর দু’খান হাত,
কালু-গাজির কিচ্ছা সারারাত
শুনবে তুমি পরানখানি ভরে,
পূবের হাওয়া লাগবে এসে গায়,
বিজলী যদি আচমকা চমকায়
বুকের মাঝে রাখবো বাহুডোরে।

 

তুমি আমায় যদি গো ভালোবাসো,
প্রেমসাগরে একটুখানি ভাসো
শামগঞ্জের বাজার ঘুরে ঘুরে,
আনবো কিনে শাপলা ফুলের মালা
না যদি পাই ফের যাবো রাইপুরে।

 

শ্যামল ছায়া যদি মনভোলায়
বুঝবে তুমি আছো বোনকোলায়
আমার বাড়ি ঠায় দাঁড়িয়ে থেক,
ঐ শারীরভিটা গাঁও অনেক দূর
মোদের গ্রাম আর বাঘুলপুর
প্রচন্ড বিল মাঝখানে তার দেখ।

 

আর কেহনা শুধু দুজন মিলে,
গমগাড়া আর যাবো পদ্মবিলে,
ধানের ক্ষেতে দেখ বায়ুর খেলা,
চাষীরা গায় মধুর সুরে গান,
সুরে মাতাল মাঠের কচি ধান
দেখে দেখে কাটবে তোমার বেলা।

 

আর যদি পাই কভু জ্যোৎস্নারাতি,
দুজন মিলে করবো চড়ুইভাতি
টের পাবেনা দুষ্ট ছেলের দল,
দুষ্ট চোখের বাঁকা দৃষ্টি থেকে,
বহু যোজন পূর্ণ আড়াল রেখে
তোমায় ভালোবাসবো অবিরল।

 

সত্যি যদি আমায় ভালোবাসো,
মেঘলা দিনে আলোক হয়ে এসো
শুনতে পাবে বুকের ব্যাথা যতো,
নীশিকালে চাই বাতায়ন পাশ,
আঁধার আমারে করে পরিহাস
নির্ঘুম রাত চলছে অবিরত।

 

আরও পড়ুন

বিল গাজনার চিল

সীমাবদ্ধতা

রব শুধু রব

 

ঘুরে আসুন আমাদের ফেসবুক পেইজে

তোমার প্রতিক্ষায়

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী মো. আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সমাজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন "আমাদের সুজানগর"-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং "আমাদের সুজানগর" ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন। বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ সালের ১৫ জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!