জাহাঙ্গীর-পানু
উলাট,  মানিকহাট,  লেখক পরিচিতি,  সাহিত্য

জাহাঙ্গীর পানু

জাহাঙ্গীর পানু ১৯৭৭ খ্রিস্টাব্দে পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার মানিকহাট ইউনিয়নের উলাট গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শিক্ষা সনদ অনুযায়ী জন্ম তারিখ ০১ জানুয়ারি, ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দ।

পারিবারিক জীবন: বাবা আলহাজ্ব মাস্টার মো. নুরুল হক মৃধা এবং মা বেগম নূরজাহান হক। দাদা আলহাজ্ব চাঁদ আলী মৃধা। বাবা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ছিলেন এবং মা ছিলেন গৃহিণী।

ছয় ভাই চার বোনের সংসারে তিনি ভাইদের মধ্যে তৃতীয় এবং ভাই বোনদের মধ্যে সপ্তম। বৈবাহিক জীবনে তিনি স্ত্রী ও দুই পুত্র সন্তানের জনক। 

শিক্ষা জীবন: গাজনার বিলের পলি বিধৌত উর্বর উলাটের গ্রামীণ পরিবেশের ধুলা কাঁদা মেখে বৃষ্টিতে ভিজে বড় হয়েছেন। গৃহ শিক্ষকের নিকট পড়াশুনার হাতেখড়ি শেষে উলাট সিদ্দিকীয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় প্রাথমিক পাঠ শেষ করে ঐ একই প্রতিষ্ঠান হতে ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে দাখিল পরিক্ষায় ১টি লেটারসহ প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে শাহজাদপুর শাহ মাখদুমিয়া ফাজিল মাদ্রাসা হতে দ্বিতীয় বিভাগে আলিম এবং ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে শাহজাদপুর ডিগ্রী কলেজ থেকে সমাজ বিজ্ঞান হতে দ্বিতীয় বিভাগে গ্রাজুয়েশন ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে কর্মজীবনে প্রবেশ করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করে ২০০২ খ্রিস্টাব্দে নাইট শিফটে ক্লাস করে সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ হতে এমএসএস ডিগ্রি অর্জন করেন। 

কর্ম জীবন: জাহাঙ্গীর পানু বিএসএস পরীক্ষা শেষ করে ফলাফল প্রকাশের আগেই ঢাকায় একটি কম্পিউটার ফার্মে বেতনের পাশাপাশি কম্পিউটার শেখানো শর্তে ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে চাকরিতে প্রবেশ করেন। পরবর্তীতে চাকরি করেছেন গ্রাফিক্স প্রতিষ্ঠান ইন্টার স্পীড, আইএসএল ফার্নিচার, রপ্তানিমুখী গার্মেন্টস শিল্প প্রতিষ্ঠান ল্যান্ডমার্ক গ্রুপ ও ফকির নিটওয়্যার লিমিটেডে। 

আরও পড়ুন হাতেম আলী

২০১০ খ্রিস্টাব্দে গ্রামে ফিরে উলাট নূরজাহান শিক্ষা নিকেতন নামে কিন্ডারগার্টেন প্রতিষ্ঠা করেন এবং তিনি অত্র প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও প্রধান শিক্ষক।

কিন্ডারগার্টেনের পাশাপাশি বর্তমানে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এর এজেন্ট শাখা খুলেছেন।  চিনাখড়া বাজারে প্রতিষ্ঠিত অত্র ব্যাংকের এজেন্ট মালিক ও ইনচার্জ তিনি।

লেখালেখি: লেখালেখিতে নির্দিষ্ট কোনো বিষয়বস্তু নেই। যখন যে বিষয়  ভালো লাগে সে বিষয়ে লেখেন। মাধ্যমিক হতেই পারিবারিক পরিমন্ডলে সংস্কৃতিক চর্চা, বই পড়া, পত্রিকা পড়ার অভ্যাস ও লেখালেখিতে হাতে খড়ি হয়।

অনেক কবিতা ও গল্প লিখেছেন কিন্তু তা যথাযথভাবে সংরক্ষণ করেন নি। লেখা ছাপা হয়েছে গ্রামের দেয়াল পত্রিকা, পাবনা হতে প্রকাশিত দৈনিক নির্ভর, ইছামতী, মাসিক খোলাচোখ, প্রথম আলোর বন্ধুসভা, ছদ্মনামে দৈনিক ইত্তেফাকের কন্যা জায়া জননীতে। জাহাঙ্গীর হোসেনের কবিতায় কবি জসিম উদ্দিন, আল মাহমুদ ও রফিক আজাদের কবিতার প্রভাব লক্ষণীয়।

অর্জনসমূহ: মাধ্যমিকে পড়াশোনা চলাকালীন  গ্রাম, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার অর্জন করেন। গান, কবিতা আবৃত্তি, বক্তৃতা, রচনা প্রতিযোগীতা ও সাধারণ জ্ঞানে অনেক সাফল্য অর্জন করেন।

ভ্রমণ পিপাসু: জাহাঙ্গীর পানু দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণ করেছেন। কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, রাঙামাটি, সিলেট ও বান্দরবনের বিভিন্ন জায়গা। খুলনা সুন্দরবন হিরন পয়েন্ট, দিনাজপুর রামসাগর, শেরপুর গজনী, কুুমিল্লা বার্ড, ময়নামতি, বগুড়া, নওগাঁসহ বাংলাদেশের ৩৬টি জেলায় ঘুরে বেড়িয়েছেন। দেশের বাইরে ভারতের দার্জিলিং, চীনের কুনমিং এ মানব আকৃতির স্টোন ফরেস্ট, ২০০০ মিটার ভুগর্ভস্থ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সুড়ঙ্গ পরিদর্শন, বেইজিং অলিম্পিক স্টেডিয়াম, বিশ্ববিখ্যাত চায়না এ্যাক্রোবায়োটিক শো, তিয়ানজিং শহর ও চীনের প্রাচীর খ্যাত গ্রেট ওয়াল পরিদর্শন করেছেন। সৌদিআরবে বাবা-মাকে সঙ্গে নিয়ে মক্কা মদিনা ভ্রমণ করে হজব্রত পালন ও ইসলামের ঐতিহাসিক স্থানগুলো পরিদর্শন করেন।

তিনি সহিষ্ণু, সুস্থ ও সংস্কৃতিময় আদর্শিক সমাজ পুনর্গঠনের স্বপ্ন দেখেন।

 

ঘুরে আসুন আমাদের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলফেসবুক পেইজে

Facebook Comments Box

প্রকৌশলী মো. আলতাব হোসেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সমাজ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিবেদিত অলাভজনক ও অরাজনৈতিক সংগঠন "আমাদের সুজানগর"-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং "আমাদের সুজানগর" ওয়েব ম্যাগাজিনের সম্পাদক ও প্রকাশক। সুজানগর উপজেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাহিত্য, শিক্ষা, মুক্তিযুদ্ধ, কৃতি ব্যক্তিবর্গ ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে ভালোবাসেন।বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধন্য ওয়াশিং প্লান্টের রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেকশনে কর্মরত আছেন। তিনি ১৯৯২ সালের ১৫ জুন পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার অন্তর্গত হাটখালী ইউনিয়নের সাগতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!